আবদু ছালাম ভেট্টুর মনগড়া প্রতিবাদের বিরুদ্ধে আবু আহমদের বিবৃতি

 

গত ০২ এপ্রিল বহুল প্রচারিত দৈনিক আজকের কক্সবাজারে ‘কলাতলীতে চাঁদাবাজদের সাথে সিএনজি চালকদের সংঘর্ষ, লাঞ্চিত সংবাদকর্মীরা’ শিরোনামে তথ্যভিত্তিক বস্তুনিষ্ট সংবাদ প্রকাশিত হয়। এ সংবাদে সর্বত্র তোলপাড় সৃষ্টি হয়। অপকর্ম আড়াল দিতে বিভিন্ন মহলে দৌড়ঝাঁপ শুরু করে চিহ্নিত চাঁদাবাজ আবদু ছালাম ভেট্টু। যার অংশ হিসেবে ওই সংবাদ প্রসঙ্গে রবিবার (০৪ এপ্রিল) দৈনিক আজকের কক্সবাজার ও সকালের কক্সবাজারে আবদু ছালাম ভেট্টু একটি মগড়া প্রতিবাদ দেই। ওই প্রতিবাদে প্রতিবাদকারী হিসেবে আমার নাম ব্যবহার করা হয়। যা আমাকে অবহিত করা হয়নি। মূলতঃ ঘটনার দিন গণহারে চাঁদাবাজির প্রতিবাদে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ কর্মসূচী পালন করে সাধারণ সিএনজি চালকেরা। এই কর্মসূচীর সংবাদ সংগ্রহ করতে যায় প্রিয় সাংবাদিক ভাইয়েরা। কিন্তু শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীতে হঠাৎ সাধারণ সিএনজি চালক ও সাংবাদিক ভাইদের উপর নগ্ন হামলা চালায় আবদু ছালাম ভেট্টুর নেতৃত্বে একদল চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজ। যার সংবাদ তথ্যভিত্তিক প্রকাশ করে জনপ্রিয় আইপি অনলাইন টিভি টিটিএন, সিবিএন ও দৈনিক আজকের কক্সবাজার বার্তা। সংবাদে আন্দোলনকারী নিরহ শ্রমিক আমির হোসেন রুবেলসহ সিএনজি চালকদের বিরুদ্ধে মিথ্যা বিষাদগার করা হয়েছে। যা এই ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা চালায় আবদু ছালাম ভেট্টু।
মূলতঃ দীর্ঘদিন ধরে কলাতলী মোড়ে জেলা সিএনজি, অটো রিক্সা, টেম্পু সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নাম ভাঙিয়ে আবদু ছালাম ভেট্টু ও কলাতলীর কিছু উচ্ছৃঙ্খল যুবক অসহায় সিএনজি চালকদের কাছ থেকে দৈনিক ৪০ টাকা করে চাঁদা আদায় করে আসছে। সিএনজি চালকেরা চাঁদা দিতে অস্বীকার ও সেই টাকার হিসাব চাওয়ায় চাঁদাবাজরা ক্ষিপ্ত হয়ে নানা হুমকী ধমকী দেয়। একপর্যায়ে সিএনজি চালকদের উপর হামলা করা হয়। তাই সাধারণ শ্রমিকেরা চাঁদাবাজদের দৌরাত্ম্য বন্ধে পুলিশ সুপার, জেলা প্রশাসন ও পৌর মেয়রের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। আর নিয়মতান্ত্রিকভাবে জেলা সিএনজি, অটো রিক্সা, টেম্পু সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সকল শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীতে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেয়ার জন্য সবার প্রতি আহবান জানাচ্ছি। সেই সাথে চিহ্নিত চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসীদের বয়কট করার জন্য সকলের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

বিবৃতিদাতা
আবু আহমদ
কার্যকরী সভাপতি
জেলা সিএনজি, অটো রিক্সা, টেম্পু সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন
কলাতলী, কক্সবাজার।