হোটেল মোটেল জোনে অপরাধ করে কেউ পার পাবেনাঃ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার

 

এম.এ আজিজ রাসেলঃ
কক্সবাজার সদর সার্কেল এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আদিবুল ইসলাম আদিব বলেছেন, পর্যটন কক্সবাজার এখনও অন্যান্য দেশের তুলনায় পিছিয়ে রয়েছে। তাই পর্যটন শিল্প বিকাশে সরকার নানা উদ্যোগ করেছেন। কিন্তু কিছু অসাধু ব্যক্তি পর্যটনকে পুঁজি করে নিজেদের আঁখের গোছাতে ব্যস্ত রয়েছে। অর্থ লোভে ওইসব ব্যক্তি হোটেল মোটেল জোনকে অপরাধের স্বর্গরাজ্য বানাতে চাই। বিলাস বহুল এসি রুমে বসে পেছন থেকে কলকাটি নেড়ে তারা এখানকার পরিবেশ বিনষ্ট করছে। বর্তমান সরকার মাদক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযান শুরুর নির্দেশ দিয়েছে। সেই মোতাবেক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তাই হোটেল মোটেল জোনে অপরাধ করে কেউ পার পাবে না। অপরাধীরা যে দলেই হোক বা যতই প্রভাবশালী হোক না কেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
রবিবার (১ ডিসেম্বর) বিকালে লাইট হাউজস্থ কটেজ জোনে কক্সবাজার পৌরসভার ১২নং ওয়ার্ডের কমিউনিটি পুলিশিং ফোরাম আয়োজিত আইনশৃঙ্খলা উন্নয়ন সংক্রান্ত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, কোন নেতার পরিচয়ে এখানে কেউ চাঁদাবাজি করলে ছাড় দেয়া হবে না। বর্তমানে অনেক টপ টপ নেতা জেলের গøানি টানছে। এখন লিংকরোড থেকে কলাতলী পর্যন্ত সিসি ক্যামরা স্থাপন করা হয়েছে। সব কিছু মনিটরিং করছে জেলা পুলিশ। তাই সময় থাকতে সতর্ক হয়ে যান। বিজয়ের মাসে স্বাধীনতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে সবাই পর্যটনের উন্নয়নে কাজ করুন। জেলা পুলিশ সব সময় আপনাদের পাশে থাকবে। নিজেদের রক্ষাকবচেরর জন্য তিনি সব হোটেল মোটেল ও কটেজে সিসিটিভি ক্যামরা স্থাপন করার নির্দেশ দেন।

 

সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার পৌরসভার ১২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর কাজী মোর্শেদ আহম্মদ বাবু।
১২নং ওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সভাপতি নাজমুল হোছাইন নাজিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সৈয়দ আবু মোহাম্মদ শাহজাজান কবির, জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক কাজী মোস্তাক আহম্মদ শামীম, জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক এম.এ মনজুর, হোটেল মোটেল গেষ্ট হাউজ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আবুল কাশেম সিকদার ও পৌর কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সভাপতি মিজানুর রহমান। সভা সঞ্চালনা করেন ১২নং ওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সাধারণ সম্পাদক ফরিদুল আলম।
সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সৈয়দ আবু মোহাম্মদ শাহজাজান কবির বলেন, হোটেল মোটেল জোনে কেউ অশান্তি সৃষ্টি করলে তা সহ্য করা হবে না। লোক দেখানে কোন অভিযান চলবে না। মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ নির্মূলে পুলিশ দৃঢ় অঙ্গীকারবদ্ধ। কক্সবাজারকে সারা বিশ্বে পর্যটন শহর হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে সবাইকে স্ব স্ব অবস্থান থেকে কাজ করতে হবে। আগামী মাসে সদর থানা পুলিশ বীচ পুলিশিং কার্যক্রম শুরু করবে। কার্যক্রমে সব হোটেল মোটেল ও কটেজের যাবতীয় তথ্য এবং ভাড়াটিয়াদের তথ্য সংগ্রহ করা হবে। তাই এই কার্যক্রমে সবাইকে সহযোগিতা করার জন্য তিনি অনুরোধ করেন।
তিনি বলেন, মনে রাখবেন একটি অপরাধ ১০টি অপরাধের জন্ম দেয়। তাই পরিবার কেন্দ্রীক সন্তানদের নৈতিক চরিত্র গঠনে মনযোগ বাড়াতে হবে।
সভায় সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) খাইরুজ্জামান, ওসি (অপারেশন) মোহাম্মদ ইয়াছিনসহ হোটেল-মোটেল, গেষ্ট হাউজ ও কটেজ এর মালিক, ব্যবসায়ী ও কর্মকর্তা-কর্মচারিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।